যে জাতি-ধর্মের প্রত্যেক দেবতারাই অস্ত্রধারী, সে জাতি কেন আজ নিঃক্ষত্রিয়

8

যে জাতি-ধর্মের প্রত্যেক দেবতারাই অস্ত্রধারী, সে জাতি কেন আজ নিঃক্ষত্রিয়

আপনি লক্ষ করে দেখুন, এই গোটা পৃথিবীর প্রত্যেক ধর্মাবলম্বীরা নিজ নিজ ধর্ম প্রানের বিনিময়ে রক্ষা করে চলেছে এবং তারা ধর্মীয় ব্যাপারে  একতাবদ্ধও বটে ! 

কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয় এটিই, যে হিন্দু জাতির মধ্যে এর লেশমাত্র পাওয়া যায় না এবং ধর্মরক্ষার বিষয়ে তারা সম্পূর্ণরূপে উদাসীন । আর এ কারনেই আজ সনাতন ধর্ম বিলুপ্তির পথে ।  হিন্দুদের নিবাসস্থল ভারতবর্ষকে যে এ পর্যন্ত কতো খন্ডে ভাগ করা হয়েছে তা হয়তো আমার বলা সম্ভব নয় ! আমাদের সনাতন শাস্ত্রে কথিত আছে : "যে জাতির রাজকীয় গুণ নেই সে জাতি কখনও রাজক্ষমতা লাভ করতে পারে  না ।  আর লাভ করতে পারলেও তা বেশিদিন স্থায়ী হয় না  " অর্থাৎ তারা রাজক্ষমতা হারিয়ে ফেলে ।  


এখানে প্রশ্ন : রাজকীয় গুণ  কি ?  

রাজকীয় গুণ হলো নিজেরদের মধ্যে পারিবারিক,সামাজিক ইত্যাদি  দিক থেকে যতই কলহ থাকুক কিন্তু ধর্মরর্ক্ষার্থে অর্থাৎ জাতির রক্ষার্থে বিভেদ ভুলে গিয়ে একতাবদ্ধ হওয়া । ইংরেজিতে একটি প্রবাদ আছে :  


" Unity is strength", "united we stand, devided we fall" 


 বর্তমানে হিন্দুজাতির ভেতর এর বিপরীতভাব পরিলক্ষিত হয়। জাতিভেদ, বংশতন্ত্র ব্রাহ্মণপ্রথা, বর্ণভেদ, অসাধুদিগের তৈরি পুরাণশাস্ত্র, সমাজকে অবিরাম চুষতে থাকা বংশতন্ত্র ব্রাহ্মণদের তৈরি পুরোহিত দর্পন ইত্যাদি আমাদের  সনাতন ধর্মে ফাঁটল ধরিয়ে চৌচির করে দিয়েছে। এইসব অতিপ্রাকৃত কুসংস্কারই হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের মেকি এবং হীনবীর্য জাতিতে পরিনত করেছে।

সোশ্যাল মিডিয়ার দিকে তাকালেই চোখে পড়ে হিন্দুদের ধর্মান্তরিত হওয়ার কথা ।  আজকাল এসব আমাদের কাছে অতি পরিচিত খবর হয়ে দাড়িয়েছে ! অন্য ধর্মের ছেলে-মেয়েদের ধর্মান্তরিত হওয়ার খবর তো চোখে পড়ে না ? শুধু হিন্দু ছেলে-মেয়েরাই কেন ?  কিন্তু যদি সময় দিয়ে একটু রিসার্চ করেন,  তাহলে এর উত্তর পেতে আপনার হয়তো বেশিদিন সময় লাগবে না ! এর কারন হিন্দু পিতা-মাতারা ! যারা তাদের সন্তানদের ধর্মীয় শিক্ষা দেন না, দেওয়ার প্রয়োজনই মনে করেন না । এটি করে তারা নিজ ধর্মের, সর্বোপরি তাদের সন্তানদের যে কতোবড় ক্ষতি করছেন তারা নিজেরাও হয়তো জানেন না । একজন ভিন্ন-ধর্মাবলম্বী যদি এক হিন্দুকে সনাতন ধর্ম সম্পর্কে কিছু জিজ্ঞেস করে তাহলে সে কিছুই বলতে পারে না । কারন ?  ঐ.... সে নিজ ধর্ম বিষয়ে অজ্ঞ । এই অজ্ঞতার সুযোগ নিয়েই বিধর্মীরা সনাতনী ছেলে-মেয়েদের ব্রেইনওয়াশ করে । তারা যাই বলে সে তা মেনে নিতে বাধ্য হয় । সে মনে করে এটাই সত্যি । কিন্তু তার ধর্মীয় ব্যাপারে সত্য-মিথ্যার জ্ঞান হয় নি । তা সে যত শিক্ষিতই হোক । কারন সে তার নিজ ধর্ম বিষয়ে কখনো জানেই নি । এর পরিণাম ?


পরিণাম এই, যে শীঘ্র ধর্মান্তরিত হয়ে সে  সনাতন ধর্ম রহিত পথ অনুসরন করে !  হ্যা, ঠিক এটাই ঘটে যাচ্ছে আর তার জন্য আমরা নিজেরাই দায়ী । ভাবতেই অবাক লাগে তাইনা....?  

    "যে পিতা-মাতারা নিজ সন্তানদের ধর্মীয় শিক্ষা দেন না, সেরূপ পিতাও শত্রু মাতাও শত্রু"

কারন ধর্মত্যাগের মতো মহাপাপ আর ইহলোকে নাই । তাই সমস্ত সনাতনী পিতা-মাতাদের উদ্দেশ্যে  বলছি । আপনারা আপনাদের সন্তানদের শৈশবকাল থেকেই ধর্মীয় শিক্ষা দিন । বেদোক্ত আদি ধর্ম রক্ষা করুন ।

আমাদের সকলের সম্মিলিত চেষ্টায় একদিন সনাতন ধর্ম পুনরায় জাগরিত হবে । আবার প্রতিষ্ঠিত হবে বিশ্ব বিদিত আর্যসমাজ । আর সেইদিনই হবে মহাজাগরন !!!  


১০ ভাদ্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ 

আপনি হিন্দুর ছেলে তাই বলে আপনি হিন্দু নন । আপনি হিন্দু তখনই হবেন যখন আপনার শাস্ত্রজ্ঞান থাকবে । আর তাও যদি না থাকে তাহলে আপনি জড় পদার্থ ।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

8 মন্তব্যসমূহ
* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন
To Top